মঙ্গলবার, মে ১৮, ২০২১



সদ্য সংবাদ

  •   বাংলাদেশের সব খবর সহ আন্তর্জাতিক, বিনোদন, খেলার খবর ও অন্যান্য সব ধরণের খবর সবার আগে অনলাইনে পেতে চোখ রাখুন "টিএনএন" এ। আমাদের সাথে যুক্ত হতে পারেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও।

বাংলাদেশ

ধনবাড়ী (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি ঃ টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী উপজেলার বীরতারা ইউনিয়নের রাজার হাট এলাকার সোনালী ব্রিক্স (ইটভাটার) কারনে গ্রামের মানুষ গুলোর কষ্ঠের সিমা নেই। ভাটার কারনে বীরতারার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দাখিল মাদ্রসা, কিন্ডারগাডেন, রাজার হাট বাজার, এবং এলাকার আবাদি জমির মধ্যে গড়ে উঠা ইটভাটার কারনে সব ধরনের ফসল জমিতেও গাছের ফল খেতে পাচ্ছে না এই ইট ভাটার কালো ধোঁয়ার কারণে।

এলাকা বাসী ইটভাটা উচ্ছেদ করার জন্য গণস্বাক্ষর দিয়ে ধনবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

স্থানীয় লোকজন সাংবাদিকদের জানান ১নং বীরতারার বালাসূতি গ্রামের ২নং ওয়ার্ডের স্থায়ী বাসীন্দা মো: ফরহাদ হোসেন জানান বিগত পাঁচ বছর যাবৎ বাড়ীর নিকটে অপরিকল্পিত ভাবে তিন ফসলী জমিতে প্রভাবশালী মহলের লোকেরা সোনালী ব্রিক্স ইটভাটা স্থাপনে কারনে আমার একমাত্র আয়ের উৎস লিচু ও আম বাগান হতে বাৎসরিক দুই লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকা থেকে ৩ লক্ষ টাকা আয় করেছি। কিন্তু বর্তমানে ইটভাটার কারনে আজ ধ্বংষের প্রান্তে এসে পৌছিছে। এই ইটের ভাটার কারনে আজ সরকারের গ্রামীন অবকাটামো উন্নয়ন রাস্থাঘাট মানুষের চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। স্থায়ী এলাকা বাসী জমায়েত হয়ে ভাটাটি উচ্ছেদের জন্য এলাকাবাসি প্রসাশনের কাছে জোর দাবি জানায়। এ ব্যাপারে ধনবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার শেখ শামছুল আরেফিনের কাছে এ প্রতিবেদক জানতে চাইলে তিনি বলেন, একটি অভিযোগ পেয়েছি তদন্তের জন্য সহকারী কমিশনার (ভূমি) কে তদন্তের জন্য দায়িত্ব দিয়েছি।

স্থানীয় ইউপি চেয়াম্যান মোঃ শফিকুল ইসলাম শফি বলেন, আবাসিক ও ঘনবসতি এলাকায় ইটভাটা করা ঠিক না। কিন্তু অভিযোগ কারীদেরও ইটভাটায় জমি আছে। তারা যদি জমি না দিত তাহলে ইটভাটাই থাকেনা। ভুক্তভূগি মোঃ ফরহাদ হোসেন বলেন, ভাটায় আমার কোন জমি নেই।



সর্বশেষ

ফেসবুকে আমরা