রবিবার, ফেব্রুয়ারী ২৮, ২০২১



সদ্য সংবাদ

  •   বাংলাদেশের সব খবর সহ আন্তর্জাতিক, বিনোদন, খেলার খবর ও অন্যান্য সব ধরণের খবর সবার আগে অনলাইনে পেতে চোখ রাখুন "টিএনএন" এ। আমাদের সাথে যুক্ত হতে পারেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও।

খোলা কলাম
আমাদের স্বপ্ন দেখার সাথে সাথে কঠোর পরিশ্রমও করতে হবে, তবেই সফলতার মুখ দেখা সম্ভব। এই করোনা মহামারীতে আমাদের সকলকে আরো ধৈর্য ধরে কাজ করতে হবে। সামনের শুভ দিনগুলো দেখার অপেক্ষায় তিনি বলেন, "আশা করি পরিস্থিতি স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসবে এবং ব্যবসা আগের মতোই শক্তিশালী হয়ে উঠবে।" একান্ত এক সাক্ষাৎকারে মিনিস্টার-মাইওয়ান গ্রুপের চেয়ারম্যান এম এ রাজ্জাক খান রাজ এবং এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক বর্তমান পরিস্থিতি এবং মিনিস্টারের যাত্রা ও পরিকল্পনা সম্পর্কে কথা বলেছেন। মিনিস্টার-মাইওয়ান গ্রুপের যাত্রা শুরুর কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন, "সাদা-কালো টেলিভিশন দিয়ে যাত্রা শুরু করলেও, সাফল্য অর্জনে আমাদের খুব বেশী অপেক্ষা করতে হয়নি।” সাদা-কালো টেলিভিশনের সাফল্যের পরে, আমি মানুষের দোরগোড়ায় স্বল্প ব্যয়ে এবং কম ভোল্টেজের টেলিভিশন আনার কাজ শুরু করি। তার পরেই শুরু হয়েছিল রঙিন টেলিভিশনের যাত্রা। সেই সময়, মাইওয়ান টেলিভিশন একমাত্র ব্র্যান্ড যা বাংলাদেশে ৭ বছরের ওয়ারেন্টি দেয়। প্রথমদিকে, আমরা মাইওয়ান নামে পরিচিত থাকলেও কীভাবে একটি নতুন নাম দিয়ে মানুষের কাছে পৌঁছানো যায় তা নিয়ে আমরা ভাবতে থাকি। তারপরে আমরা মিনিস্টার নামটি বেছে নিয়েছিলাম, যা আল্লাহর রহমতে এখন সকলের কাছেই প্রশংসিত। মাত্র ৫ জন সহকর্মী এবং পাঁচ লাখ টাকার মূলধন নিয়ে মোহাম্মদপুরের একটি ছোট কারখানায় স্বপ্নের প্রকল্পের যাত্রা শুরু হয়েছিল ২০০২ সালের ১লা জুন। সিঙ্গাপুর থেকে মেকানিকাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে পড়াশোনা ও কাজ করার পরে তিনি দেশে ফিরে এসে স্থানীয় বহুজাতিক ব্র্যান্ডের স্বপ্ন দেখতে শুরু করেন। অধ্যবসায় ও পরিশ্রমের কারণেই আজ তিনি সাফল্যের শিখরে রয়েছেন। তিনি একের পর এক নতুন পণ্য বাজারে এনে সবাইকে চমকে দিয়েছিলেন। এম এ রাজ্জাক খান রাজ একজন স্বপ্নদর্শী যিনি ইলেক্ট্রনিক্স খাতকে অবিচ্ছিন্নভাবে পুনঃনির্মাণে বিশ্বাসী; সময়ের সাথে সাথে তার নাম আজ আত্মবিশ্বাসের প্রতীক হয়ে উঠেছে। তিনি বলেছেন, মিনিস্টারের টিভি চোখের ক্ষতি থেকে রক্ষা করতে পারে কারণ এই টিভিগুলি চোখের প্রতিরক্ষামূলক প্রযুক্তি দ্বারা তৈরি। এটিতে উচ্চ গুনগত মানসম্পন্ন প্যানেল রয়েছে যা, বজ্রপাতেও ক্ষতিগ্রস্থ হবে না। এই টিভিতে 4K এবং ফুল এইচডি রেজোলিউশনও রয়েছে। এই টিভি কম্পিউটার মনিটর হিসেবেও ব্যবহার করা যেতে পারে। মিনিস্টারের টিভির সাথে একটি অতিরিক্ত রিমোট এবং একটি ওয়াল হ্যাঙ্গার দেওয়া হয়। মিনিস্টারের টিভিতে ৭ বছরের ওয়ারেন্টিসহ ৪ বছরের প্যানেল গ্যারান্টি এবং ১ বছরের পুনঃস্থাপন গ্যারান্টি রয়েছে। টিভি ছাড়াও তিনি অন্তর্নির্মিত স্ট্যাবিলাইজার সমৃদ্ধ শক্তি-সঞ্চয়ী রেফ্রিজারেটর নিয়ে আসেন, যা ইতোমধ্যে মানুষের চাহিদা মেটাতে সক্ষম হয়েছে এবং বাজারে এই ব্যয় কার্যকর কম ভোল্টেজের ফ্রিজগুলোর চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। গ্রাহকরা এই ফ্রিজের কম্প্রেসারে ১২ বছরের গ্যারান্টি উপভোগ করতে পারবেন। প্রযুক্তিসম্পন্ন ফ্রিজের জনপ্রিয়তা তরুণ নেতা এম এ রাজ্জাক খানকে বাজারে এয়ার কন্ডিশনার আনতে উৎসাহিত করে। তিনি বলেন, মিনিস্টার এমন এয়ার কন্ডিশনার তৈরি করছে যা জ্বালানি সাশ্রয়, ইনভার্টার এবং ইএস প্রযুক্তি মেনে চলবে। রেফ্রিজারেটরের মতো, এসির কম্প্রেসারগুলোতেও ১২ বছরের গ্যারান্টি রয়েছে। এই সমস্ত পণ্য ছাড়াও তিনি ব্লেন্ডার, রাইস কুকার সহ বিভিন্ন হোম অ্যাপ্লায়েন্স সরঞ্জাম বাজারে আনেন। কোভিড -১৯-এর আঘাত হওয়ার পরে এমএ রাজ্জাক খান "মিনিস্টার হিউম্যান কেয়ার" এর সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন মূলত জনগণের স্বাস্থ্যবিধি এবং স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার জন্য। তখন মিনিস্টার বিভিন্ন পণ্য সমন্বিত নতুন কিছু ব্র্যান্ড চালু করে। পণ্যগুলি এর মধ্যে রয়েছে সেফটি প্লাস হ্যান্ড ওয়াশ, ব্রাইট ওয়াশ, গ্লাস ক্লিনার, ফ্লোর ক্লিনার, ডিটারজেন্ট পাউডার, চাঁদ ফ্যাব্রিক ব্রাইটনার (নীল), চাঁদ ডিশ ওয়াশ লিকুইড এবং টয়লেট ক্লিনার। এছাড়াও, দেশ যখন ফেস মাস্কের ঘাটতির মুখোমুখি হয়েছিল এবং নিম্নমানের মাস্কগুলো উচ্চ মূল্যে বিক্রি হওয়া শুরু করে, তখনই তিনি এদেশের মানুষের কথা চিন্তা করে বাজারে সাশ্রয়ী মূল্যে ৩ স্তর বিশিষ্ট মাস্ক সরবরাহ শুরু করেন। যা এরই মাঝে ওষুধ প্রশাসন কর্তৃক অনুমোদিত এবং জনগণের দ্বারা প্রশংসিত হয়েছে। তরুণ প্রগতিশীল ব্যবসায়ী করোনার মহামারীতে দেশের অর্থনৈতিক মন্দার সময়েও আশা প্রকাশ করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, “মিনিস্টার-মাইওয়ান গ্রুপের সমস্ত পণ্য আমাদের নিজস্ব কারখানায় উৎপাদিত হয়, যেখানে দেশের তরুণ, মেধাবী, উৎসাহী কর্মীরা সর্বাধিক প্রচেষ্টায় দেশের জন্য, একসাথে কাজ করেছে। এমনকি এই মহামারীতেও, আমাদের কর্মীরা অত্যন্ত যত্ন এবং নিষ্ঠার সাথে কাজ করেছে। আমি মনে করি, আমাদের কোম্পানি গত ১৮ বছর ধরে দেশের যে কোনও পরিস্থিতিতে অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। "আমার পণ্য আমার দেশ, গড়বো বাংলাদেশ" - এই স্লোগানকে লালন করে আমরা এগিয়ে চলছি। এম এ রাজ্জাক খান আরও বলেন পরিস্থিতির অর্থনৈতিক ক্ষয়ক্ষতি মেটাতে সরকার ইতিমধ্যে মানুষের কর্মসংস্থানের জন্য অনেক কিছু করছে যার মধ্যে ৭২,৭৫০ কোটি টাকার প্রণোদনা ঘোষণা অন্যতম। এছাড়াও, সরকার স্থানীয় শিল্পপতি ও উদ্যোক্তাদের বিভিন্ন লোন প্রদান করেছে, যেমন বিএসআইসি শিল্প নগরীগুলোতে লোকেশন সুবিধা, যা বাংলাদেশের অর্থনীতিকে শক্তিশালী করতে সহায়তা করেছে।

সর্বশেষ

ফেসবুকে আমরা