সোমবার, নভেম্বর ২৯, ২০২১
The Report
 ইতিহাসের নিজস্ব কণ্ঠস্বরে জমজমাট ‘দি এম্পায়ার’

ইতিহাসের নিজস্ব কণ্ঠস্বরে জমজমাট ‘দি এম্পায়ার’

টিএনএন ডেস্ক
প্রকাশের সময় : August 31, 2021 | বিনোদন

অ্যালেক্স রাদারফোর্ড এর ‘এম্পায়ার অব দ্য মুঘল, রেইডারস ফ্রম দ্য নর্থ’ বইটির ছায়া অনুসারে নির্মিত সিরিজ ‘দি এম্পায়ার’।

প্রায় ছ'শো বছর আগেকার ইতিহাস, তারই ঘূর্ণিপাকে ঘটনার ঘনঘটা মোট আটটি এপিসোড জুড়ে। দর্শকের মগজ এবং চেতনা জড়িয়ে পড়ে বহু পরিচিত চরিত্র এবং ঘটনার পরতে পরতে। অ্যালেক্স রাদারফোর্ড এর ‘এম্পায়ার অব দ্য মুঘল, রেইডারস ফ্রম দ্য নর্থ’ বইটির ছায়া অনুসারে নির্মিত সিরিজ ‘দি এম্পায়ার’। পরিচালক মিত্রাক্ষরা কুমার। প্রযোজক মনীষা আদবানি এবং মধু ভোজয়ানি। কাহিনীর শুরু ১৪৯৪ সালে, ফরঘনা প্রদেশ থেকে। ভাবী মুঘল সম্রাট বাবর তখন চোদ্দ বছরের। ফরঘনার অধিপতি বাবরের পিতা উমর শেখ। পুত্র বাবরের সঙ্গে তিনি কাব্য আলোচনা করেন, হিন্দুস্তান যাওয়ার স্বপ্ন এঁকে দেন কিশোর পুত্রের চোখে। কিন্তু সেই সময়েই পিতার মৃত্যু কিশোর বাবরকে এক ধাক্কায় সাবালক করে দেয়। ও দিকে সমরনায়ক সাইবানি খান অত্যাচার চালাচ্ছে, সমরখন্দ, ফরঘনায়। সবাইকে তার বশ্যতা স্বীকার করতে হবে। সাইবানির দুর্ভেদ্য প্রতিরোধ ডিঙিয়ে বাবর সমরখন্দে প্রবেশ করলেন; কিন্তু শেষরক্ষা হল না। দুর্ধর্ষ সাইবানি ফরঘনায় এসে আটক করল বাবরের প্রিয় দিদি খানজাদা এবং মা কুতলুগকে। সমস্ত প্রতিবন্ধকতা ডিঙিয়ে বাবর সমরখন্দ জয় করেন। মুক্ত করেন বন্দিদের। বাবরের জীবনের প্রথমে তাঁর নানি এবং পরবর্তীতে দিদি খানজাদার গুরুত্ব দেখানো হয়েছে বিপুল পরিমাণে। রাজতন্ত্রের আলো আঁধারির মধ্যে দিয়ে গল্প এগিয়ে চলে। ক্ষমতার জন্য সর্বস্ব পণ, প্রাসদের মধ্যেই নানা ষড়যন্ত্র, সম্রাটের অহং, অভিমান, যন্ত্রণা... চেনা জীবনের বাইরে রাজকীয় যাপনের গল্প। বিশ্বাস এবং অবিশ্বাস; জীবন এবং মৃত্যু... গা ঘেঁষে চলতে থাকে সমান্তরাল রেখায়। ভালবাসা এবং বিশ্বাসের সঙ্গেই অবিশ্বাস এবং হত্যার অভিঘাত দর্শককে বিমুঢ় করে রাখে।